বিসমিল্লাহির রহমানির রহীম

 

জরদারিতে পাঁচ যুবক

নজরদারিতে পাঁচ যুবক

সৈয়দ আতিক

প্রকাশ : ০৭ মার্চ, ২০১৫

এফবিআইয়ের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী কারাবন্দি মুফতি জসিম উদ্দিন রাহমানীর পাঁচ শিষ্য জুমার খুতবা নামে একটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তারা আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্য। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একটি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। জুমার খুতবায় জসিম উদ্দিন রাহমানীর উগ্রপন্থী প্রচারণা পোস্ট করা হতো। গ্রেফতারের পর থেকে তার প্রচারণা এ সাইটে আর পোস্ট করা না হলেও অন্যদের ভিডিও এবং অডিও বক্তব্য নিয়মিত পোস্ট করা হচ্ছে।
<a href='http://platinum.ritsads.com/ads/server/adserve/www/delivery/ck.php?n=acd94d5f' target='_blank'><img src='http://platinum.ritsads.com/ads/server/adserve/www/delivery/avw.php?zoneid=780&n=acd94d5f' border='0' alt='' /></a>
ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একজন কর্মকর্তা যুগান্তরকে বলেন, জুমার খুতবায় মোজাফফর বিন মহসিনের খুতবা পোস্ট করা হয়। তিনি পিস টিভি বাংলার আলোচক। গত বছর নভেম্বর মাসে ডিবি পুলিশ রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে। গত বছর ২৭ আগস্ট রাজধানীর পূর্ব রাজাবাজারের নিজ বাসায় ইসলামিক অনুষ্ঠানের উপস্থাপক মাওলানা নুরুল ইসলাম ফারুকী হত্যার নির্দেশদাতা হিসেবে মহসিনকে গ্রেফতার করা হয়। হত্যাকাণ্ডের দু’দিন আগে তিনি ফেসবুক পেজে একটি ভিডিও পোস্ট করেন। যেখানে উল্লেখ করা হয়, ‘ফারুকী শিরক করেছেন।’ এর প্রতিবাদে তিনি সবাইকে এগিয়ে আসারও আহ্বান জানান। মহসিন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের হয়ে কাজ করেন বলে গোয়েন্দা পুলিশের অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে।গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, জুমার খুতবায় উগ্রপন্থী ও সরকারবিরোধী প্রচারণা চালানো হচ্ছে। আর এতে ওই পাঁচজন সম্পৃক্ত রয়েছেন। তাদের নেতৃত্বে রয়েছেন জসিমের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ এক সহযোগী। গোয়েন্দা তালিকায় যে পাঁচজনের নাম এসেছে তারা হলেন : সৌরভ সালেহ, আসলাম, জাহাঙ্গীর, সা’দ ও সোহেল। তাছাড়া সাজিদ নামে এক যুবক তাদের সঙ্গে আগে জড়িত থাকলেও তিনি এখন ব্যবসা-বাণিজ্য নিয়ে ব্যস্ত বলে জানা গেছে।গোয়েন্দাদের একটি সূত্র জানায়, জুমার খুতবায় সম্পৃক্ত যুবকদের গত রোজার ঈদের দু’দিন পর মানিকগঞ্জ সদর থানা পুলিশ আটক করেছিল। কিন্তু সন্দেহভাজন যুবকদের পরদিন ছেড়ে দেয় পুলিশ। আটকের দিন যুবকরা মানিকগঞ্জ সদরে একটি মসজিদে শুক্রবার ‘জুমার খুতবা’ রেকর্ড করে। ফেরার পথে তাদের কাছে ক্যামেরা ও ধর্মীয় বই ছিল। মাওলানা ফারুকী হত্যার নির্দেশদাতা হিসেবে গ্রেফতার মাওলানা মহসিনও সেদিন মানিকগঞ্জের একটি মসজিদে জুমার খুতবার আয়োজনে বক্তব্য দিতে গিয়েছিলেন।ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপকমিশনার (ডিসি) শেখ নাজমুল আলম যুগান্তরকে বলেন, আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের (এবিটি) প্রধান জসিম উদ্দিন রাহমানীর উগ্রপন্থী বক্তব্য জুমার খুতবায় নিয়মিত পোস্ট করা হতো। জুমার খুতবা এবিটি সদস্যদের নিয়ন্ত্রিত একটি সাইট। ফারুকী হত্যায় গ্রেফতার মাওলানা মহসিনের বক্তব্য ওই সাইটে পোস্ট করা হতো। উপকমিশনার শেখ নাজমুল আলম বলেন, জুমার খুতবা যারা পরিচালনা করে বা যারা সম্পৃক্ত তারা উগ্রপন্থী চেতনায় বিশ্বাসী। তাদের খুব শিগগিরই আইনের আওতায় আনা হবে।ডিবি পুলিশ সূত্র জানায়, জুমার খুতবার সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা যেসব এলাকায় তাদের কর্মকাণ্ড চালায় এর সংক্ষিপ্ত তালিকাও পাওয়া গেছে। এর মধ্যে রাজধানীর শান্তিনগর, বংশালের সুরিটোলা লুৎফর রহমান লেন ও সুরিটোলা স্কুল মাঠসংলগ্ন রোড, মোহাম্মদপুরের শাহজাহান রোড, বাড্ডার বড় বেরাইদ পূর্ব পাড়া ও নর্দ্দার সরদার পাড়া এলাকা, মাদারটেক পানির পাম্প এলাকা, নাজির বাজার, কাজী আলাউদ্দিন রোড, পুরান ঢাকার মালিটোলা, গাজীপুরের সালনা এলাকা উল্লেখযোগ্য। এসব এলাকায় কয়েকটি মসজিদে জুমার খুতবা রেকর্ড করে থাকেন আনসারুল্লাহর সদস্যরা।
- See more at: http://www.jugantor.com/first-page/2015/03/07/230854#sthash.ziQWOlfR.dpuf
নজরদারিতে পাঁচ যুবক

সৈয়দ আতিক

প্রকাশ : ০৭ মার্চ, ২০১৫

এফবিআইয়ের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী কারাবন্দি মুফতি জসিম উদ্দিন রাহমানীর পাঁচ শিষ্য জুমার খুতবা নামে একটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তারা আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্য। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একটি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। জুমার খুতবায় জসিম উদ্দিন রাহমানীর উগ্রপন্থী প্রচারণা পোস্ট করা হতো। গ্রেফতারের পর থেকে তার প্রচারণা এ সাইটে আর পোস্ট করা না হলেও অন্যদের ভিডিও এবং অডিও বক্তব্য নিয়মিত পোস্ট করা হচ্ছে।
<a href='http://platinum.ritsads.com/ads/server/adserve/www/delivery/ck.php?n=acd94d5f' target='_blank'><img src='http://platinum.ritsads.com/ads/server/adserve/www/delivery/avw.php?zoneid=780&n=acd94d5f' border='0' alt='' /></a>
ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একজন কর্মকর্তা যুগান্তরকে বলেন, জুমার খুতবায় মোজাফফর বিন মহসিনের খুতবা পোস্ট করা হয়। তিনি পিস টিভি বাংলার আলোচক। গত বছর নভেম্বর মাসে ডিবি পুলিশ রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে। গত বছর ২৭ আগস্ট রাজধানীর পূর্ব রাজাবাজারের নিজ বাসায় ইসলামিক অনুষ্ঠানের উপস্থাপক মাওলানা নুরুল ইসলাম ফারুকী হত্যার নির্দেশদাতা হিসেবে মহসিনকে গ্রেফতার করা হয়। হত্যাকাণ্ডের দু’দিন আগে তিনি ফেসবুক পেজে একটি ভিডিও পোস্ট করেন। যেখানে উল্লেখ করা হয়, ‘ফারুকী শিরক করেছেন।’ এর প্রতিবাদে তিনি সবাইকে এগিয়ে আসারও আহ্বান জানান। মহসিন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের হয়ে কাজ করেন বলে গোয়েন্দা পুলিশের অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে।গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, জুমার খুতবায় উগ্রপন্থী ও সরকারবিরোধী প্রচারণা চালানো হচ্ছে। আর এতে ওই পাঁচজন সম্পৃক্ত রয়েছেন। তাদের নেতৃত্বে রয়েছেন জসিমের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ এক সহযোগী। গোয়েন্দা তালিকায় যে পাঁচজনের নাম এসেছে তারা হলেন : সৌরভ সালেহ, আসলাম, জাহাঙ্গীর, সা’দ ও সোহেল। তাছাড়া সাজিদ নামে এক যুবক তাদের সঙ্গে আগে জড়িত থাকলেও তিনি এখন ব্যবসা-বাণিজ্য নিয়ে ব্যস্ত বলে জানা গেছে।গোয়েন্দাদের একটি সূত্র জানায়, জুমার খুতবায় সম্পৃক্ত যুবকদের গত রোজার ঈদের দু’দিন পর মানিকগঞ্জ সদর থানা পুলিশ আটক করেছিল। কিন্তু সন্দেহভাজন যুবকদের পরদিন ছেড়ে দেয় পুলিশ। আটকের দিন যুবকরা মানিকগঞ্জ সদরে একটি মসজিদে শুক্রবার ‘জুমার খুতবা’ রেকর্ড করে। ফেরার পথে তাদের কাছে ক্যামেরা ও ধর্মীয় বই ছিল। মাওলানা ফারুকী হত্যার নির্দেশদাতা হিসেবে গ্রেফতার মাওলানা মহসিনও সেদিন মানিকগঞ্জের একটি মসজিদে জুমার খুতবার আয়োজনে বক্তব্য দিতে গিয়েছিলেন।ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপকমিশনার (ডিসি) শেখ নাজমুল আলম যুগান্তরকে বলেন, আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের (এবিটি) প্রধান জসিম উদ্দিন রাহমানীর উগ্রপন্থী বক্তব্য জুমার খুতবায় নিয়মিত পোস্ট করা হতো। জুমার খুতবা এবিটি সদস্যদের নিয়ন্ত্রিত একটি সাইট। ফারুকী হত্যায় গ্রেফতার মাওলানা মহসিনের বক্তব্য ওই সাইটে পোস্ট করা হতো। উপকমিশনার শেখ নাজমুল আলম বলেন, জুমার খুতবা যারা পরিচালনা করে বা যারা সম্পৃক্ত তারা উগ্রপন্থী চেতনায় বিশ্বাসী। তাদের খুব শিগগিরই আইনের আওতায় আনা হবে।ডিবি পুলিশ সূত্র জানায়, জুমার খুতবার সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা যেসব এলাকায় তাদের কর্মকাণ্ড চালায় এর সংক্ষিপ্ত তালিকাও পাওয়া গেছে। এর মধ্যে রাজধানীর শান্তিনগর, বংশালের সুরিটোলা লুৎফর রহমান লেন ও সুরিটোলা স্কুল মাঠসংলগ্ন রোড, মোহাম্মদপুরের শাহজাহান রোড, বাড্ডার বড় বেরাইদ পূর্ব পাড়া ও নর্দ্দার সরদার পাড়া এলাকা, মাদারটেক পানির পাম্প এলাকা, নাজির বাজার, কাজী আলাউদ্দিন রোড, পুরান ঢাকার মালিটোলা, গাজীপুরের সালনা এলাকা উল্লেখযোগ্য। এসব এলাকায় কয়েকটি মসজিদে জুমার খুতবা রেকর্ড করে থাকেন আনসারুল্লাহর সদস্যরা।
- See more at: http://www.jugantor.com/first-page/2015/03/07/230854#sthash.ziQWOlfR.dpuf